Breaking News আলোকিত নারী সম্মাননা পাচ্ছেন কোহিনূর আখতার সুচন্দা ও রুনা লায়লা                    দুই মন্ত্রীসহ স্বাধীনতা পুরস্কার পাচ্ছেন ১৫ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান                    জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত নির্মাতা ও চিত্রশিল্পী খালিদ মাহমুদ মিঠু গাছচাপায় সোমবার মারা গেছেন                    শাকিব খান ও জয়া আহসান অভিনীত দ্বিতীয় ছবি ‘পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেমকাহিনী ২’ মুক্তি পাচ্ছে আগামী ৮ এপ্রিল                    বলিউড অভিনেত্রী প্রীতি জিনতার বিবাহোত্তর সংবর্ধনায় অংশ নেবেন বলিউডের তিন খান শাহরুখ, আমির ও সালমান খান                    দ্য রেভেন্যান্ট ছবিতে অভিনয় করে অস্কার পেলেন হলিউড সুপারস্টার লিওনার্ডো ডি ক্যাপ্রিও                    মাসুদ পথিক পরিচালিত সরকারি অনুদানের ছবি ‘নেকাব্বরের মহাপ্রয়াণ’ ও সৈকত নাসির পরিচালিত ‘দেশা-দ্য লিডার’ এর জয়জয়কার                    এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ২৫ ফেব্রুয়ারি তথ্য মন্ত্রণালয় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৪ ঘোষণা করেছে                    সৌরভ গাঙ্গুলীর সঞ্চালনায় জি বাংলা চ্যানেলের জনপ্রিয় অনুষ্ঠান ‘দাদাগিরি’তে অংশ নিতে রুনা লায়লা ২৯ ফেব্রুয়ারি কলকাতায় যাচ্ছেন                    ১৮ বছর আগের চেক বাউন্স মামলা থেকে রেহাই পেলেন বলিউড অভিনেতা দীলিপ কুমার, মঙ্গলবার মুম্বাই আদালতে এই রায় দেওয়া হয়                    শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের ‘শেষের পরিচয়’ উপন্যাস অবলম্বনে অঞ্জন আইচের পরিচালনায় ‘রূপকথার মা’ নাটকে যাত্রাদলের নায়িকার ভূমিকায় অভিনেত্রী বাঁধন                    ঢাকার মিরপুর শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে বুধবার শুরু হওয়া এশিয়া কাপের এগারোতম আসরের খেলা সরাসরি সম্প্রচার করবে মাছরাঙা ও গাজী টেলিভিশন                    প্রয়াত নজরুলসংগীতশিল্পী ফিরোজা বেগমের নামে ২৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গঠন করা হয়েছে ‘ফিরোজা বেগম স্মৃতি স্বর্ণপদক ট্রাস্ট ফান্ড’                    হুমায়ূন আহমেদের উপন্যাস অবলম্বনে মেহের আফরোজ শাওন পরিচালিত প্রথম চলচ্চিত্র ‘কৃষ্ণপক্ষ’ মুক্তি পাচ্ছে ২৬ ফেব্রুয়ারি                    এবার একুশে পদক পেলেন জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত, হায়াৎ মামুদ, হাবীবুল্লাহ সিরাজী (ভাষা ও সাহিত্য) মফিদুল হক (মুক্তিযুদ্ধ), শাহীন সামাদসহ (সংগীত) ১১জন                    বরেণ্য সুরকার ও সংগীত পরিচালক আনোয়ার জাহান ঝন্টুর উন্নত চিকিৎসার জন্য সাহায্য কামনা করেছেন তার পরিবার                    শিল্প-সাহিত্য-সংগীতে শিগগিরই মেধাসম্পদ আইন প্রণয়ন করা হবে বলে রবিবার সিরডাব মিলনায়তনে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু                    নেপালে ভয়াবহ ভূমিকম্পে সেখানে অবস্থানরত শুটিং করতে যাওয়া বাংলাদেশি শিল্পীরা সুস্থ ও নিরাপদে আছেন                    কানাডার টরেন্টোতে ১৪ মে শুরু হওয়া আন্তর্জাতিক সাউথ এশিয়ান ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে বাংলাদেশের তিনটি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে                    সাত বছর আবার একসঙ্গে জুটিবদ্ধ হয়েছেন চলচ্চিত্রাভিনেতা ফেরদৌস এবং মডেল ও অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম                    বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমী ও বাংলাদেশ নৃত্যশিল্পী সংস্থার আয়োজনে ২৯ এপ্রিল পালিত হবে বিশ্ব নৃত্য দিবস                    বরেণ্য সুরকার ও সংগীত পরিচালক আনোয়ার জাহান নান্টু রাজধানীর পপুলার হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে                    ক্রিকেটার রুবেল হোসেনের বিরুদ্ধে চিত্রনায়িকা হ্যাপির করা মামলার চূড়ান্ত শুনানির জন্য ১৭ মে দিন ধার্য করেছে ঢাকা নারী ও শিশু নির্যাতন ট্রাইব্যুনাল-৫                    জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক সংস্থার নেতা ও অভিনেতা হেলাল খানের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন মহানগর দায়রা জজ                    জি-সিরিজের ব্যানারে ও এলিমেন্ট ফাইভ-এর সৌজন্যে প্রকাশিত হলো ইকবাল আসিফ জুয়েলের আয়োজনে ৩৪টি ব্যান্ডের ৩৪টি গান নিয়ে ৩টি অ্যালবাম                    বরেণ্য সুরকার ও সংগীত পরিচালক আনোয়ার জাহান নান্টু রাজধানীর পপুলার হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) এখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে                    রাজধানীর শাহবাগে কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান স্মৃতি মিলনায়তনে ১৮ এপ্রিল শুরু হয়েছে ‘চারুনীড়ম টেলিভিশন কাহিনীচিত্র উৎসব’                    আসন্ন কান চলচ্চিত্র উৎসবের লালগালিচায় হাঁটবেন বলিউড অভিনেত্রী ঐশ্বরিয়া রায় বচ্চন ও সোনম কাপুর                    রাজধানীর গুলশানে ১৭ এপ্রিল ছিনতাইয়ের কবলে পড়ে আহত হন অভিনেত্রী ও মডেল তানজিনা তিশা                    এমআইবি গানমেলায় লেজারভিশনের ব্যানারে ১৬ এপ্রিল প্রকাশিত হয়েছে মিশ্র অ্যালবাম ‘কিছু প্রত্যাশা’                    ভারতের টাইমস গ্রুপের ২০ আবেদনময়ী নারীর তালিকায় ১৯ নম্বরে বাংলাদেশের অভিনেত্রী জয়া আহসান                    বাংলাদেশ শিল্পী সমিতি নির্বাচনে জয়ী হলেন সভাপতি পদে সাকিব খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে অমিত হাসান                    চল্লিশের দশকের কবি আবুল হোসেন রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে স্কয়ার হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন                    `স্টাইলিশ হেয়ার অব দ্য ক্যাম্পাস’ প্রতিযোগিতায় ৩ লাখ তরুণীর মধ্যে বিজয় মুকুট জিতেছেন ময়মনসিংহের তরুণী রোকেয়া রাশেদ রিমি                    নিউ ইয়র্কের আর্ট কানেকশন গ্যালারিতে চলছে বিপাশা হায়াতসহ ৮ বাংলাদেশি নারীশিল্পীর চিত্রকর্ম প্রদর্শনী                    
Find us on facebook Find us on twitter Find us on you tube RSS feed
13 Apr 2015   06:53:42 PM   Monday BdST A- A A+ Print this E-mail this

পয়লা বৈশাখ হোক মধ্যম আয়ের দেশ গড়ার শপথের দিন

আলমগীর হোসেন

পয়লা বৈশাখ হোক মধ্যম আয়ের দেশ গড়ার শপথের দিন

আলমগীর হোসেন

বৈশাখ হলো বাংলা বর্ষপঞ্জিকার প্রথম মাস, বাংলা নতুন বছরের প্রথম দিন নববর্ষ বা পয়লা বৈশাখ, গ্রেগোরিয়ান ক্যালেন্ডারের ১৪ এপ্রিল এবং জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের ১২ এপ্রিল উৎসব হিসেবে উদ্যাপন করা হয়। বাংলাদেশসহ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, আসামের বাঙালি কমোনিটিতে, ত্রিপুরা, ঝাড়খণ্ড, উড়িষ্যাসহ সমস্ত ভারতবর্ষের বাঙালি অধ্যুষিত অঞ্চলে উৎসব হিসেবে উদ্যাপন করা হয়। বাংলা পঞ্জিকা বাংলাদেশ, ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, মিথিলা, আসাম, ক্যারালা, মণিপুর, উড়িষ্যা এবং বার্মা, কম্বোডিয়া, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, তামিলনাড়– ও থাইল্যান্ডে ব্যবহৃত হয়। কারো কারো মতে গৌড় রাজা শশাঙ্ক বঙ্গাব্দের চালু করেছিলেন। দ্বিতীয় মত ভারতবর্ষে ইসলামি শাসন আমলে হিজরি সাল অনুসারে সকল কাজকর্ম পরিচালিত হত। কিন্তু যেহেতু অর্থনীতি কৃষির ওপর পুরোপুরি নির্ভরশীল ছিলো সেহেতু ঋতুচক্রের কারণে জমির মালিকরা কৃষকের ফসল পাকার আগে খাজনা সংগ্রহ করতে বেগ পেত। বাদশা আকবর এর গুরুত্ব উপলব্ধি করে ইরান থেকে আগত বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ও জ্যোতির্বিদ আমির ফতুল্লাহ শিরাজীকে প্রয়োজনীয় সংশোধন করে বর্ষপঞ্জিকা তৈরির নির্দেশ দেন। তিনি ছয় ঋতুতে শস্য উৎপাদনকে মূল বিবেচনায় রেখে পারস্যে প্রচলিত সৌর বর্ষপঞ্জিকার অনুসরণে ৯৯১ হিজরি মোতাবেক ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে বাংলা বর্ষপঞ্জিকা প্রবর্তন করেন। যাতে কৃষকেরা চৈত্র মাসের শেষের দিকে তাদের সমুদয় খাজনা অর্থাৎ বৈশাখ মাস শুরু হওয়ার আগে খাজনা পরিশোধ করে  পয়লা বৈশাখে আনন্দ উৎসব করতে পারে। বাদশা আকবর নিয়ন্ত্রিত দক্ষতানির্ভর আনন্দ উৎসব খাজনা পরিশোধের পরের দিন উদ্যাপন ধার্য করেন। কিন্তু বাংলাদেশে কালেক্টিভ ফর্মে ১৯৬৫ পর্যন্ত খাজনা নেওয়া হয়নি। ব্রিটিশের ডিভাইড অ্যান্ড রুল প্রবর্তন করে পাকিস্তান সরকার যাতে বেঙ্গলির মুসলিমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতার আন্দোলন না করতে পারে তার জন্য নোবেল প্রাইজ পাওয়া বাঙালি বিখ্যাত লেখক কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গান নিষিদ্ধ করে দিলে সাংস্কৃতিক সংগঠন  ‘ছায়ানট’ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে প্রতিবাদ করেছিল। এইভাবেই পয়লা বৈশাখ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদের কাছে জাতীয় ভাবনা হয়ে দাঁড়ায়।

বাঙালির প্রধান সর্বজনীন উৎসব পয়লা বৈশাখ।

বাঙালির আছে নিজস্ব সংস্কৃতি, কৃষ্টি, আধুনিক যুগের বৈজ্ঞানিক সংযোজন বাঙালির হৃদয় থেকে মুছে দিতে পারে তা হয়ত সম্ভব নয়। কারণ আমাদের হৃদয়ে গেঁথে আছে আমাদের সংস্কৃতি এবং তার ঐতিহ্য, হয়ত বাঙালির জীবন বহমান নদীর মতো বয়ে চলেছে। তার শ্রুতসাধ্য ধারা, নিয়তির লীলা খেলায় সকল আধুনিকতার ভীড়েও ভুলে যায়নি তার নিজস্ব সত্তা। তেমনই এ জীবনের অনেক কিছু বন্ধনের সঙ্গে বৈশাখ অবিচ্ছেদ্য। পুরনো দিনের অনেক কিছুই হারিয়ে যাচ্ছে সেকথা ঠিক কিন্তু বৈশাখ প্রতিবছর আবির্ভূত হয় আপন মহিমায়। হৃদয়ের টানে, মাটির টানে, পূর্বপুরুষের নাড়ির বন্ধনের কারণে আবাল বৃদ্ধ বনিতা বাঙালি স্বইচ্ছায় বৈশাখকে প্রতি বছর তার ঐতিহ্যগত সম্মানের সঙ্গে গ্রহণ করে নেয়। প্রকৃতি যেভাবে নতুন করে সাজে বৈশাখে মানুষের মন যেন খুঁজে পায় জীবনের নতুন ধারা, নতুন অবয়ব, নতুন স্বাদ। বাঙালির নিজস্ব ভাবধারা মূর্তপ্রতীক হয়ে জীবনের স্বাদ খুঁজে ফেরে তার আপন মহিমায়। কী ছোট, কী বড় সকল ভেদাভেদ ভুলে চলে যায় নিজের অস্তিত্বের কাছে, আত্মতৃপ্তি খুঁজে নেয় প্রকৃতির সৌন্দর্যের মাঝে। প্রাণের স্পন্দন বড় মধুর, সুন্দর, সৃষ্টিকর্তার অস্তিত্বের এক মহাপ্রত্যয়। আনন্দ হৃদয়কে ছুঁয়ে যায় নিজের অজান্তেই।

বসন্তকালে কোকিলের কুহু কুহু ডাক আর গাছে গাছে নতুন পাতা গজিয়ে প্রকৃতি নতুন সাজে সেজেছে। বসন্তের পরে বৈশাখ আসে। বাঙালি সাড়ম্বরে বৈশাখকে বরণ করে। আবহমান বাংলার গ্রামে গ্রামে বসে বৈশাখি মেলা। অন্যান্য বছরের ন্যায় চলছে বৈশাখের বিশেষ শাড়ি, পোশাক পরিচ্ছদের আয়োজন। পান্তা-ইলিশের কথা কে না জানে! বৈশাখের আরো কত কী রান্না, পাটশাক, সজিনা, আম-ডালের স্বাদ কে ভুলতে পারে। হরেকরকমের ডিজাইনের হাতপাখা, বাঁশ-বেতের কাজ, মাটির তৈরি থালা-বাসন, লাটাই ঘুড়ি, নকশিকাঁথা ও মেলায় পাওয়া যাবে বিন্নি-বাতাসা, খই আরো কত কী। বাংলার গ্রামে গ্রামে চলছে বাউল সংগীতের আয়োজন। ঢোলের আওয়াজ আর বাঁশির সুরে মানুষ হচ্ছে মোহিত। এখনো গ্রামের বাজারগুলোতে হালখাতার আয়োজন হয়। অল্প-বিস্তর দোকানিরা তাদের পুরনো হিসাব-নিকাশ চুকিয়ে নতুন খাতা খুলছে, মিষ্টি মুখ করাচ্ছে খরিদ্দারদের। হৃদয় দিয়ে সবাই সবাইকে উপলব্ধি করছে। বিভিন্ন সাংস্কৃতি সংগঠন, রাজনৈতিক সংগঠন, বিশেষ বিশেষ আয়োজনে বৈশাখকে বরণ করে নেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সবকিছু মিলে বাঙালি জাতি বৈশাখকে নতুনভাবে বরণ করে নেওয়ার জন্য প্রস্তুত।

কিন্তু হায় ৮১ দিনের লাগাতার হরতাল, অবরোধে শত মানুষের জীবন গেল, নষ্ট হলো জাতীয় সম্পদ, ক্ষতি হলো হাজার হাজার কোটি টাকা কিন্তু কেন? কেন? পেট্রোল বোমা মেরে, গাড়িতে আগুন দিয়ে সাধারণ মানুষকে পুড়িয়ে মারার কোনো দারকার ছিলো?  হরতাল মূলত একটা গুজরাটি শব্দ যা সর্বাত্মক ধর্মঘটের প্রকাশক। মহাত্মা গান্ধী ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে প্রথম এই শব্দটি ব্যবহার করেন। এটা হচ্ছে সরকারের বিরুদ্ধে জনগণের সম্মিলিত আন্দোলন, সকল কর্মক্ষেত্র, দোকান, আদালত, রাস্তাঘাট বন্ধ থাকে, অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, গণমাধ্যমসহ অত্যাবশ্যকীয় কিছু জিনিস এর বাইরে থাকে। এটা সাধারণত কোনো দাবি আদায় করার জন্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সরকার সমর্থিত নয়, এমন সংগঠন কিংবা বিরোধী দল হরতালের আহ্বান করে থাকে, ভারতীয় উপমহাদেশেই রাজনৈতিক হাতিয়ারটির ব্যবহার বেশি দেখা যায়।

শান্তিপূর্ণ হরতালের মূল কার্যক্রম প্রতিবাদ মিছিল এবং সমাবেশ। কখনো কখনো এই পদ্ধতির ব্যবহার করতে গিয়ে মাত্রাতিরিক্ত কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়া কিংবা আইন বহির্ভূত কাজে নেমে যাওয়া হরতালকে শান্তিপূর্ণ রাখে না। তখন আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী লাঠি চার্জ করে, গরম পানি ছিটিয়ে, কাঁদানে গ্যাস ছুঁড়ে, কিংবা রাবার-বুলেট দিয়ে গুলি করে হরতাল সমর্থকদের ছত্রভঙ্গ করে। কিছু ব্যতিক্রম ক্ষেত্রে পুলিশ বে-আইনিভাবে বন্দুকের বাট বা বুট দিয়ে পিকেটারদের ওপর চড়াও হয়।

অবরোধ শব্দের অর্থ বাধা, প্রতিবন্ধকতা ; পরিবেষ্টন সৃষ্টি করা, বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যাতায়তের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বাধা প্রদান করা। খুব সূক্ষ্ম বিশ্লেষণ করলে যা পার্থক্য পরিলক্ষিত হয় তা হলো অবরোধে সাধারণত দূরপাল্লার যানবাহন চলে না, স্থানীয় যানবাহনে বাধা দেওয়া, বাড়াবাড়ি কিছুটা কম থাকে। জনসাধারণের মনে অবরোধের চেয়ে হরতাল বেশি আতঙ্ক সৃষ্টি করে। হর অর্থ প্রত্যেক আর তাল অর্থ তালা অর্থাৎ প্রত্যেক দরজায় তালা আর অবরোধ হলো কোনো নির্দিষ্ট স্থানে যাতায়াতের পথে বাধা প্রদান করা। সব কিছুরই সীমাবদ্ধতা থাকবে কিন্তু বাংলাদেশে কী ঘটে গেল? যারা কর্মসূচি দিলেন তারা একবারও কি ভেবে দেখেছেন?

কী নিষ্ঠুরতাÑএমন কী নিজের দলের লোকদের বিপদের মুখে ঠেলে দিতেও রাজনৈতিক নেতৃত্ব চিন্তা করল না, পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করার অপরাধে বাংলাদেশ দণ্ডবিধির কত ধারায় কী শাস্তি হবে, কে বাঁচাবে তাদের? কত নেতা-কর্মী মারা পড়ল, জেলে গেল, মামলার  শিকার হয়ে ফেরারীজীবন, সুখ হারাম হলো পুরো পরিবারের, কী হবে তাদের? যারা বোমার আঘাতে মারা গেলেন তাদের পরিবারের কী অবস্থা, কী অপরাধ ছিলো নিহত এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের। এভাবে চলতে পারে না একটি জায়গায় স্থির হতে হবে, সেক্ষেত্রে দেশের সকল রাজনৈতিক দল, বুদ্ধিজীবীরা নির্ধারণ করবেন কীভাবে এখান থেকে বের হয়ে সুস্থ ধারাবাহিকতার রাজনীতি করা যায়। দেশকে সমৃদ্ধশালী করার জন্যই, দেশের মানুষকে স্বস্তি দেওয়ার জন্যই সকলকে চিন্তা করতে হবে, সব কিছুর ঊর্ধ্বে থাকতে হবে সবার দেশপ্রেম।

৫ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময়ও সহিংস আন্দোলন করে জীবন ও সম্পদের ক্ষতি করা হয়েছিল। সব সময়ই বিরোধীরা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলনের মাধ্যমে তাদের দাবি আদায় করলে দেশ ও জনগণ এমন কী দলগুলোও তাদের নেতাকর্মী সবাই লাভবান হবেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুসহ সকল নিষ্ঠুর হত্যা, জাতীয় চার নেতাকে জেলখানায় হত্যা, তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে যারা হত্যা করতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল যেখানে আইভি রহমানসহ ২১জন নেতাকর্মী প্রাণ হারিয়েছিল, যারা মুক্তিযুদ্ধে বিরোধিতা করেছিল, এদের নিয়ে রাজনীতি করার সুযোগ এদেশে নেই।

সকল জাতীয় নেতার সাহাদাৎবার্ষিকী ভাবগম্ভীর মর্যাদার সঙ্গে পালন করতে হবে, এইদিনে কোনোভাবেই কোনো রাজনীতিকের কেক কেটে উৎসবমুখর জন্মদিন পালন করা ঠিক হবে না, এমন কী সত্যিকারের জন্মদিন হলেও না। এ বিষয়গুলোর সমাধান করে সংবিধানসম্মত জাতীয় নীতিমালা তৈরি করে সমস্যার সমাধান করা যেতে পারে। মনে রাখতে হবে, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চাইলে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ছাড়া সম্ভব নয়।

ক্ষমতার জন্য, রাজনীতির বলি যেন আর কেউ না হয়। আর যেন কোনো মায়ের কোল খালি না হয়, আর যেন কোনো বিধবার ক্রন্দন শুনতে না হয়, আর যেন কোনো শিশু তার পিতৃস্নেহ থেকে বঞ্চিত না হয়। দেশের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী সবকিছু চলবে। প্রয়োজন হলে সবাই বসে নতুন যুগোপযোগী শাসন ব্যবস্থা তৈরি করব, সহনশীলতার মধ্যে থেকে প্রচলিত আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই। ‘বিশ্বকবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ, জীবনানন্দের রূপসী বাংলা’ গড়তে হবে। একটি জায়গায় সবাইকে বিশ্বাস স্থাপন করতে হবে শ্রদ্ধার সঙ্গে। মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক উদার চেতনার গণতান্ত্রিক দেশ।

আসুন সকল নীতি-নির্ধারক মহল কী রাজনীতিতে, কী ধর্মীয় অনুশাসনে ব্যবসা-বাণিজ্যে, সমাজের সকল স্তরে ক্ষমতাবান ব্যক্তিবর্গ বৈশাখের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করি। গড়ে তুলি সেতুবন্ধন একে অপরের সঙ্গে, ভুলে যাই বেদনা, যন্ত্রণা, মুছে ফেলি দুঃখের অশ্রুধারা, জরাজীর্ণতা মুছে যেমন করে প্রকৃতি সেজেছে আমরাও নতুন প্রাণের স্পন্দনে নতুন করে সাজব শুধুই  দেশ গড়ার লক্ষ্যে, বলবোÑ ‘এসো এসো হে বৈশাখ সুন্দর বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে এসো।’

সবাইকে ১৪২২ বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা।

লেখক : সাংবাদিক, কলামিস্ট

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিশেষ সম্পাদকীয়-এর সর্বশেষ

হোম এইপক্ষ পাঠক সমাবেশ জন্মদিন আকাশলীনা মিনি সাক্ষাৎকার অল্পস্বল্প লোকেশন থেকে অঁভোগ ডায়েট অল ইন অল রান্না রূপচর্চা বিশেষ প্রতিবেদন ফিচার মুভিমেলা মুম্বাই হলিউড মুভিমেলা ডটকম সারেগারে নিকেটদেশ দূরদেশ অল্পস্বল্প অনুশীলন নতুন মুখ পেছনের মানুষ প্রোফাইল রঙ্গশালা আবৃত্তি ভ্রমণ সাক্ষাৎকার বিশেষ সম্পাদকীয় ঐতিহ্য বিশেষ রচনা সাহিত্য টেকভুবন ব্যক্তিত্ব নাচ প্রকৃতি ব্যবসায়-বাণিজ্য সংস্কৃতি ভুবনবিচিত্রা পুনশ্চ গ্যালারি

প্রধান সম্পাদক: আলমগীর হোসেন, সম্পাদ: ইকবাল খোরশেদ,

সম্পাদকীয় সহকারী: ফিরোজ সরোয়ার, ঊর্ধ্বতন সহ-সম্পাদক: শেখ সেলিম, প্রশান্ত অধিকারী, প্রতিবেদক: ফাতেমা ইয়াসমিন, আতিফ আতাউর, ঊর্ধ্বতন গ্রাফিক্স ডিজাইনারঃ মো. সাহাদাত হোসেন, গ্রাফিক্স ডিজাইনারঃ মনির হোসেন, কম্পিউটার সহকারীঃ চৌধুরী নূরজাহান বেগম, আলোকচিত্রী: জাকির হোসেন, বাণিজ্যিক ব্যবস্থাপকঃ মো. মোখলছেুর রহমান, সহকারী বাণিজ্যিক ব্যবস্থাপকঃ কাজী ইসরাইল পিরু, বাণিজ্যিক নির্বাহীঃ শহিদুল ইসলাম এমেল, মাহবুব আলম, সহকারী ব্যবস্থাপক, প্রশাসন ও হিসাবঃ মো. আমিনুল ইসলাম

বেল টাওয়ার (১৩ তলা), বাড়ি-১৯, সড়ক-১, ধানমন্ডি, ঢাকা।

মেইলঃ news@anandabhuban.com.bd, info@anandabhuban.com.bd, editor@anandabhuban.com.bd

কপিরাইট © 2019 আনন্দভূবন.কম কর্তৃক সর্ব স্বত্ব ® সংরক্ষিত। Developed by eMythMakers.com